» ভিডিও গেম খেলার অভিজ্ঞতা দিয়ে কী ভালো চাকরি পাওয়া সম্ভব?

প্রকাশিত: ০১. সেপ্টেম্বর. ২০১৯ | রবিবার

বিশ্বের গেমিং ইন্ডাস্ট্রি এখন এত বড় যে এটি চলচ্চিত্র এবং সঙ্গীত এই দুই ব্যবসাকে যদি এক করা হয়, তাকেও ছাড়িয়ে যাবে।

কিন্তু তার পরও গেমিং এ যাদের বিশেষ দক্ষতা, তাদের অনেকেই তাদের সিভি বা জীবন বৃত্তান্তে এটি উল্লেখ করতে চাইবেন না।

তবে গেমিং এর দক্ষতাও যে একটা বড় যোগ্যতা, বড় বড় প্রতিষ্ঠানগুলো এটা বুঝতে পারছে এবং এটিকে গুরুত্ব দিতে শুরু করেছে।

বছরের পর বছর গেম খেলে আর প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে যে দক্ষতা তৈরি হয়, তাকে যে কাজে কর্মক্ষেত্রে কাজে লাগানো সম্ভব, সে ব্যাপারে নিশ্চিত গেম একাডেমী।

তারা বলছে, এর পক্ষে নিরেট তথ্য-প্রমাণ তাদের কাছে আছে।

আপনি কি পোর্টালের মতো পাজল গেম বা ডিফেন্স গ্রিডের মতো টাওয়ার ডিফেন্স গেম পছন্দ করেন? যারা তথ্য প্রযুক্তি খাতে কাজ করেন, এগুলো তাদের অনেকের প্রিয় গেম।

কিন্তু যদি আপনার পছন্দের গেমের তালিকায় থাকে সিভিলাইজেশন, টোটাল ওয়ার বা এক্স কম, যেখানে কৌশল এবং সম্পদ ব্যবস্থাপনার মতো বিষয়গুলো খুব গুরুত্বপূর্ণ, তাহলে ম্যানেজারের মতো পদের জন্যই হয়তো আপনি বেশি উপযুক্ত।

গেম একাডেমীর আইডিয়াটা খুবই সহজ। যারা গেম খেলছেন, তাদের অনলাইন প্রোফাইল বিশ্লেষণ করলেই জানা যাবে তাদের কার দক্ষতা কিসে। এরপর তাদের সে বিষয়ে আরও প্রশিক্ষণ দিয়ে এসব দক্ষতা আরও বাড়ানো যাবে।

 

গেমিং এর দক্ষতা যে অন্য কাজে লাগানো যায়, এ নিয়ে সচেতনতাও বাড়ছে।

এমনকি সামরিক বাহিনীতেও এখন গেমারদের নেয়া হচ্ছে।

ব্রিটেনের রাজকীয় বিমান বাহিনীর একজন মুখপাত্র বিবিসিকে বলেন, “তথ্য সংগ্রহ করা, দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া এবং শান্ত থেকে সমন্বিতভাবে কাজ করা- এগুলো কিন্তু যারা ভালো গেম খেলে, তাদের বৈশিষ্ট্য।”

“আমরা বিমান বাহিনীতে যে ধরণের লোক খুঁজি, তাদের বেলাতেও এই দক্ষতাই দেখা হয়। কাজেই গেমিং এর মাধ্যমে অর্জিত দক্ষতা কোন কোন ক্ষেত্রে খুবই কাজে লাগবে।”

হেইজ রিক্রুটমেন্ট নামে একটি প্রতিষ্ঠানের পরিচালক রায়ান গার্ডনার বলেন, “গেমারদের অনেক ধরণের দক্ষতা আছে যা তারা পেশাগত কাজে লাগাতে পারে। যেমন টিমওয়ার্ক, প্রবলেম সলভিং বা স্ট্রাটেজিক প্ল্যানিং।”

কিন্তু তার মানে কি এই যে কোন গেমে আপনি শীর্ষ একশো জনের মধ্যে জায়গা করে নিতে পারলে সেটা আপনার সিভি-তে লিখতে হবে?

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৪১ বার

Share Button