» যশোর সদর থেকে কেনা হবে প্রায় ৩ হাজার টন আমন ধান

প্রকাশিত: ২৬. নভেম্বর. ২০১৯ | মঙ্গলবার

যশোর সদর উপজেলা থেকে অ্যাপ্’র মাধ্যমে কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনা হবে। চলতি আমন মৌসুমে পরীক্ষামূলকভাবে ডিজিটাল পদ্ধতিতে সরকার ১৬ জেলা থেকে এই পদ্ধতিতে ধান কেনার উদ্যোগ নিয়েছে। যশোর সদর উপজেলাও রয়েছে এই তালিকায়। এখানে ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে ২ হাজার ৮২৬ মেট্রিকটন। তবে অ্যাপ্’র মাধ্যমে ধান কেনা নিয়ে কৃষকের মধ্যে ধোঁয়াশা রয়েছে।

যশোর খাদ্য অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি আমন মৌসুমে যশোর জেলায় মোট ১৫ হাজার ২৩০ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। এর মধ্যে যশোর সদর উপজেলা থেকে ২ হাজার ৮২৬ মেট্রিক টন ধান কেনা হবে।

যশোর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. লিয়াকত আলী জানান, যশোর সদর উপজেলার ২ হাজার ৮২৬ মেট্রিক টন ধান কৃষকের কাছ থেকে অ্যাপ্’র মাধ্যমে কেনা হবে। এজন্য ইতোমধ্যে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। অ্যাপ্’র মাধ্যমে আবেদন গ্রহণ করে কৃষি বিভাগ যাচাই বাছাই ও কৃষকদের চূড়ান্ত তালিকা প্রস্তু করবে। এরপর নির্ধারিত কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ করা হবে।

যশোর সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা খালিদ সাইফুল্লাহ জানান, ন্যায্যমূল্যে সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয়ের জন্য এবার পরীক্ষামূলকভাবে ডিজিটাল পদ্ধতি গ্রহণ করা হয়েছে। আমন মৌসুমে যশোর সদরসহ ১৬টি জেলায় অ্যাপ্’র মাধ্যমে এই কার্যক্রম শুরু হয়েছে। কৃষককে প্রথমে স্মার্ট ফোন বা কম্পিউটারে গুগল প্লে-স্টোরের মাধ্যমে ‘কৃষকের অ্যাপ’এ নিবন্ধন করে আবেদন করতে হবে। এ জন্য প্রয়োজন পড়বে কৃষি উপকরণ সহায়তা কার্ড, জাতীয় পরিচয়পত্র ও মোবাইল ফোন নাম্বার। ২৫ নবেম্বর থেকে শুরু হওয়া এই প্রক্রিয়া চলবে ৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এরপর ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে কৃষি বিভাগ আবেদন যাচাই বাছাই করে অটোমেটিক পদ্ধতিতে লটারির মাধ্যমে কৃষক চূড়ান্ত করবে। কৃষকরা ইউনিয়ন পরিষদের তথ্যকেন্দ্র বা যেকোনো স্থান থেকেই অনলাইনের মাধ্যমে এই নিবন্ধন ও আবেদন করতে পারবে। এ জন্য ইতোমধ্যে ইউনিয়ন পরিষদের তথ্যকেন্দ্রগুলোকে নির্দেশনা প্রদান ও উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে।

তবে তেমন প্রচার প্রচারণা ছাড়াই অ্যাপ্’র মাধ্যমে ধান ক্রয়ের উদ্যোগ নেয়ায় অনেক কৃষকেরই বিষয়টি সম্পর্কে ধারণা নেই। যশোর সদর উপজেলার হাশিমপুর এলাকার কৃষক ইউসুফ আলী জানান, তিনি তিন বিঘা জমিতে আমন আবাদ করছেন। এবার সরকার মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে ধান কিনবে এমন কিছু তিনি শোনেননি।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৫৭ বার

Share Button